মোকাব্বির খানকে নিয়ে বিএনপিতে বিভক্তি

0
116

বাংলা নিউজ ব্যাংক :

22.04.2019

 

নিউজ ডেস্ক: দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেওয়া মোকাব্বির খানকে তার দল গণফোরাম কারণ দর্শানোর নোটিশ দিলেও বিএনপির একাংশ মোকাব্বির খানের পক্ষে আছেন বলে জানা গেছে। মূলত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে জয়ী হওয়া ৬ সংসদ সদস্য শপথ নেয়ার পক্ষে থাকায় তারা মোকাব্বির খানের সঙ্গে আছেন। তারা বলছেন, সংসদে বিরোধী কণ্ঠের প্রয়োজন আছে। তাছাড়া, যাদের জনগণ ভোট দিয়ে জয়ী করেছেন, তাদের উচিত অবশ্যই শপথ নেয়া। সেক্ষেত্রে মোকাব্বির খানের প্রতি জনগণ আস্থা দেখিয়েছেন, যার কারণে তিনি শপথ গ্রহণ করেছেন। এটা স্বাভাবিক।

মূলত, মির্জা ফখরুলপন্থী নেতারাই মোকাব্বির খানের পক্ষে রয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে তারেকপন্থী নেতারা মোকাব্বির খানের পক্ষে নেই, বিধায় গণফোরামের সভাপতি কামাল হোসেন কারণ দর্শানো নোটিশ পাঠিয়েছেন বলে জানা যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন নেতা বলেন, কয়েকদিন আগে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান ড. কামাল হোসেনকে ফোন দিয়ে বিএনপির মহাসচিব পদ গ্রহণ করার আহ্বান জানান। মূলত এরপর থেকেই তারেক রহমানের কথার কোনো হেরফের করেন না ড. কামাল হোসেন। গত ১২ই মার্চ মোকাব্বির খানকে ফোন করে শপথ নিতে নিষেধ করেন তারেক রহমান। কিন্তু মোকাব্বির খান তারেক রহমানের কথা অমান্য করে শপথ নেন। এরপর ক্ষোভে তারেক রহমান ড. কামালকে ফোন করে মোকাব্বির খানকে দল থেকে বের করে দিতে নির্দেশ দিলে পরবর্তীতে মোকাব্বির খানকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেন ড. কামাল।

এদিকে বিএনপি থেকে জয়ী ৬ নেতার শপথ নেয়ার শেষ সময় যতই ঘনিয়ে আসছে, তারাও ততোই শপথ নিতে আগ্রহী হয়ে পড়ছেন। তাদের পক্ষে রয়েছেন, মির্জা ফখরুল ও কর্নেল অলি আহমদের মতো নেতারা। তাদের মতে, জনগণের রায়কে সম্মান করে হলেও শপথ নেয়া প্রয়োজন। ফলে শপথ ইস্যুতে বিএনপির মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দিয়েছে। মির্জা ফখরুলপন্থী নেতারা শপথ নেয়ার পক্ষে থাকলেও তারেক রহমানপন্থী নেতারা কোনোভাবেই চায় না বিএনপির কোনো নেতা শপথ গ্রহণ করুক।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, বিএনপির রাজনৈতিক কোন্দল নতুন কিছু নয়। মির্জা ফখরুলের সঙ্গে তারেক রহমানের দ্বন্দ্ব এবং রুহুল কবির রিজভীর সঙ্গে মির্জা ফখরুলের দ্বন্দ্ব সকলেরই জানা। এমতাবস্থায় শপথ নেয়ার ইস্যুতে আবারো বিএনপির বিভক্তি জনসম্মুখে এলো। এমন বিভক্তির রাজনীতি চলতে থাকলে, একযুগের মধ্যে বিএনপি বিলুপ্ত হয়ে যাবে বলেই ধারণা করা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here